খাবারের মাধ্যমে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হয় কিনা তা নিয়ে জনমনে কৌতুহল রয়েছে। এ বিষয়টি পরিষ্কারভাবে ব্যাখ্যা দিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।







রোববার অনলাইন প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, ‘খাবারের মাধ্যমে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমিত হয় না। তবে খাদ্য নিরাপত্তার জন্য খাদ্যবাহিত রোগ প্রতিরোধের জন্য পাঁচটি বিষয় অনুসরণ করতে হবে।’



অধ্যাপক ডা. নাসিমা বলেন, ‘সর্বস্তরে পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা, কাঁচা এবং রান্না করা খাবার আলাদা রাখা, ভালোভাবে সেদ্ধ করে রান্না করা,



নিরাপদ তাপমাত্রায় খাবার সংরক্ষণ করা, নিরাপদ পানি ও খাদ্য কাঁচামাল ব্যবহার করা। তবে সব স্তরে ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।’



ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, ‘বিভিন্ন ধরনের টাটকা শাকসবজি, ফল, পূর্ণ শস্যদানা সমৃদ্ধ খাবার বিভিন্ন প্রকার ডাল এবং শিম জাতীয়



খাবারের পাশপাশি মাছ, মাংস, ডিম, দুধ ইত্যাদি খেতে হবে।’



তিনি বলেন, ‘শিশুদের ক্ষেত্রে শূন্য থেকে ছয় মাস পর্যন্ত শুধু মায়ের বুকের দুধই যথেষ্ট। কারণ মায়ের বুকের দুধ থেকে শিশু সব ধরনের পুষ্টি এবং পানি পেয়ে থাকে। শিশুর বয়স ৬ মাসের পর মায়ের দুধের পাশাপাশি পূর্ণ নিরাপদ পুষ্টিসম্পন্ন বয়স উপযোগী খাবার দিতে হবে এবং দুই বছর পর্যন্ত অবশ্যই বুকের দুধ পান করাতে হবে। মায়ের বুকের দুধের মাধ্যমে করোনা সংক্রমিত হয় না। তবে মা করোনাবিষয়ক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন।’



রোববার অনলাইন প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে দুই হাজার ৫২ জনের মৃত্যু হলো। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে আরো দুই হাজার ৭৩৮ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট এক লাখ ৬২ হাজার ৪১৭ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে।



এম এন  / ০৫ জুলাই






মূল সংবাদটি পড়তে এখানে ক্লিক করুন